Twicebd.xyz
আমাদের সাইটে ভিজিট করার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। প্রতিটা টিউনে দেখবেন ও কমেন্ট করে জানাবেন।
Search any Post of TwiceBD
Post Creator Info
*
Online
's Bio

This author may not interusted to share anything with others
Home » Uncategorized » [real ghost] গ্রামিন জিবনে আমার নানার সাথে ঘটা একটা সত্যা ভুতের গল্প। ভালো লাগলে পড়বেন।
[real ghost] গ্রামিন জিবনে আমার নানার সাথে ঘটা একটা সত্যা ভুতের গল্প। ভালো লাগলে পড়বেন।


আজকে আমি যেই ঘটনাটি আপনাদের সাথে সেয়ার করবো তা আমার নানার মুখ থেকে সোনা তার সাথে ঘটে যাওয়া একদম সত্য ঘটনা।ঘটনাটি ভালো লাগলে পড়েবেন। আমার নানা যেভাবে ঘটনাটি আমাকে বলেছে সেভাবেই লেখা শুরু করলাম,ঘটনাটির সময়কালছিল ১৯৬৫ সালের দিকে। আমার বয়ষ তখন ২৮ বা ৩০ বছর। সেই সময় গ্রামে বিদ্যুতের কোন অস্তিত্ব ছিল না। এটা ছিল কার্তিক মাস, ধানে শিষ আসার সময়। আমার বিলের মধ্য দুই বিঘা জমি ছিলো। সে বছর পানির অভাবে জমি শুকিয়ে চৌচির হয়ে পড়েছিল। সেই সময় কোন, দীপ বা নলকুপ না থাকায় পাসের খাল থেকে জাতের মাধ্যামে (জাত: দেখতে অনেকটা নৌকার মতো তবে একদম চিকন।) পানি তোলার পরি কল্পনা করি। কিন্তু ২ বিঘা জমি আমার একার পক্ষে পানি দেয়া সম্ভব না, যদিও আমি তখন অনেক শক্তিশালী ছিলাম। তাই, আমার প্রতিবেশী জুল্লু কে বললাম। প্রথমে সে জাত সেচতে রাজি হচ্ছিল না।কারন এতে অনেক শক্তি লাগে। তাই ওকে একটু বেশী টাকা দিতে চাইলাম। তাই সে আমার সাথে জাত সেচতে রাজি হলো।তাকে বললাম, তাহলে জুল্লু তুমি আমাকে ফজরের আজানের পর যখন চারিদিকে একটু ফরসা হবে তখন ডাক দিও। যত আগে গিয়ে সেচবো ততো তাড়ি তাড়ি হবে। বলে বাড়ি চলে এলাম। বাড়ি এসে সন্ধ্যার পর খাওয়া দাওয়া করে ঘুমিয়ে পড়েছি। রাত কয়টা বেজেছে খেয়াল নেই। কারন তখন সময় দেখার জন্য কোন ঘড়ি ছিল না। হঠাৎ জুল্লু এর ডাকার আওয়াজ। জুলঁমাঁতঁ ভাই ও জুলমাঁতঁ ভাই ওঁঠো। আমি তখন ভাবলাম মনে হয় সকাল হতে চলেছে তাই জুল্লু আমাকে ডাকছে। কিন্তু তার কথা একটু যেন নাকের তলে মনে হচ্ছে মানে একটু চিকন আর তোতলাটে। আমি বললাম, জুল্লু ও জুল্লু আছো?? বাইরে থেকে আওয়াজ এলো .হু। আমি আর কিছু না ভেবে দরজা খুলি। দেখি সত্যিই সকাল হতে চলেছে মনে হচ্ছে আর একটু দুরে জুল্লু এর মতো কেউ দাড়িয়ে আছে। তাই একটু জোরে ডাক দিলাম জুল্লু একটু এসে জাতটা ধরো তো। অনেক ভারি একা চাড়া যাবে না। আমি একটু ভেতরে যাচ্ছি। বলে, আমি বাড়ির ভেতরে আসি হুকা আর কুঁঝ (কুঁঝ: দারালো অনেকগুলো ছুচ বিষিষ্ট মাছ মারা) নি। আমি ধুমপান করতাম তাই হুকাটা নি, আর নিরাপত্তার জন্য কুঁঝটা নি। এর পর বাড়ি থেকে বের হই। বের হতেই দেখি একি, জাতটা জুল্লু একাই ঘাড়ে করে নিয়ে হাটা শুরু করেছি আর আমাকে বলছে, জুঁলমাত জোরে হেটে আসো । আমি একটু অবাক হলাম, জুল্লু এতো শক্তিশালী কিভাবে হলো?? ওর মতো দুজনো তো এটা চাড়তে পারবে না। তারপর আবার ভাবলাম, হয়তো বেশী টাকা দিতে চেয়েছি বলে ওর কাজের ওপর চাহিদা বেড়ে গেছে। তাই, হাতে হুকা আর কুঁঝ নিয়ে জোরে জোরে হাটতে থাকি জুল্লু এর পিছন পিছন। জোছনা ছিলো তখন।তাই সব স্পষ্ট দেখা যাচ্ছিলো। কিছুক্ষনের ভেতরেই আমরা পৌছে যায় আমার জমির কাছে। আমি জোরে হাটতে গিয়ে একটু খাচতে জায় তাই জমির আইলে বসে পড়ি। আর জুল্লু আমার পাসেই নি:শব্দে দাড়িয়ে আছে। আমি হুকাটা ধরালাম। কয়েকটান মেরে জুল্লুকে বললাম, কি হলো তুমি হুকায় টান দিবে না?? ও একটু কেমন যানি চমকে, বললো, নাঁ। আমি বললাম, তাহলে দাড়িয়ে না থেকে জাতটা সেচা শুরু করো। আমি,, হুকাটা শেষ করে জাত ধরছি। ও তখন, প্রাই ৩ মন ওজনের জাতটাকে, তুলার বস্তার মতো চেড়ে পানিতে রাখে। আমি এবার অবাক হয়। তারপরো ভয় পাই নি। কারন আমার হাতে কুঁঝ ছিল আর হুকা ছিল। কোন খারাপ সয়াতান, বা খারাপ জ্বিনের কাছে আসার উপায় নেই। এর কিছুক্ষন পর, ধড়াস ধড়াস শব্দে জুল্লু জাত সেচতে থাকে। এতো জোরে চারজন মিলেও জাত ফেলার সম্ভবনা। এটা দেখি আমি তখন স্পষ্ট বুঝে ফেলি যে এটা জুল্লু না। আমি যদি এখন কোন ভুল করি বা ওকে বুঝতে দি আমি ওকে বুঝে ফেলেছি ও কোন সয়তান তাহলে আমাকে মেরে ফেলবে। তাই ভয়ে ভয়ে হুকাটা টানছিলাম।হঠাৎ জুল্লু আমাকে ডেকে বলে, জুঁলমাত জাতটা ধরো। আমি একটু ভয়ে ভয়ে বললাম, আ আর একটু আছে হুকটা শেষ করে ধরছি। এটা বলে হুকাটা টানছি। আর ঐ জুল্লু রুপে অবয়বটা জাত তুলছে আর ফেলছে।আমার জমির প্রাই পানিতে ভিজে গেছে । এতো জোরে সে জাত ছেচতেছিল।হঠাৎ অবয়বটা বলে, কিরে জুলমাতে জাত ধর বলছি ধর, এবার রেগে গেছে। আমি ওকে বুঝতে না দীয়ে, কুজটা পেছনে লুকিয়ে বললাম, ঠিক আছে জুল্লু ভাই আমি জাত ধরতে আসছি। বলে কুঁঝটা পেছনে লুকিয়ে নিয়ে তার কাছে গেলাম। জোছনার আলোয় তাকে খেয়াল করলাম তার পায়ে জানোয়ারের মতো নখ আছে। আমি ভয়ে প্রাই অঙ্গ্যান হবার অবস্থাই চলে আসি। হঠাত অবয়বটা আমার টুটিটা চিপে ধরে, আমি এবার চিৎকার করতে পারছি না মনে মনে শুধু আল্লাহকে স্মরন করছি। হঠাত আমার কুঁঝটার কথা মনে পড়ে। আমি কুঁঝটা দিয়ে নিজেকে রক্ষা করার জন্য তাকে জোরে বুকের ওপর আঘাত করি। অবয়বটা, শুয়রের মতো একটা চিঁ চিঁ আওয়াজ করতে করতে বিশাল বড়ো কাঠে পরিণত হয়। আমি এবার জোরে একটা চিৎকার দি এবং প্রানপণে কোন দিকে যেন দৌড় দি। যখন চোখ খুলি তখন দেখি আমি বিছানায়। আমার মা আমার মাথায় পানি ঢালছে। পরে জানতে পারি আমি নাকি, আমাদের উঠানে পড়েছিলাম। এর পরে যখন জুল্লু এর সাথে দেখা হলো আর তাকে আমি বললাম, তুমি কি আমাকে ডেকেছিল?? ও বলল,” না ভাই আমি প্রচন্ড ঘুমে ছিলাম।তাই ফজরের পর উঠতে পারি নি।” তখন আমার বুজতে বাকি থাকে না, যে সেদিন রাতে ঐটা আসলে কোন খারাপ জিন ছিল। পরে জমিতে গিয়ে দেখি আমার জমি পানিতে ভরে পাশের জমিতে পানি উভরে গেছে। আর ঐ রাতে অবয়বটার কাঠটা আর নেই। এটাই ছিলো আমার নানার সাথে ঘটা তার মুখে শোনা একদম সত্য ঘটনা। ঘটনাটি ভালো লাগলে সেয়ার করবেন।twicebd র জন্য অনেক শুভ কামনা রইল। সবাই ভালো থাকবেন।

Read More


Post Date: October 30, 2019 Total: 41 Views

Leave a Reply on TwiceBD

You must be to post comment.

HIDE Twicebd - Personal Bio
Copyright © 2018 All rights reserved.